আমার কথা/জানুয়ারী ২০২১

আকাশ ভরা সূর্য তারা, বিশ্বভরা প্রাণ

আমি পেয়েছি, পেয়েছি মোর স্থান

বিস্ময়ে তাই জাগে, জাগে আমার প্রাণ

দেখতে দেখতে একটা বছর কেটে গেল। যখন গতবছরের জানুয়ারী মাসের আমার কথা লিখেছিলাম, তখন জানতাম না যে আমাদের জীবণে কত বড় ঘটনা ঘটতে চলেছে! বিগত দশমাসে কোভিড-১৯ নামক একটি সংক্রামক ভাইরাস-জনিত অসুখ সারা বিশ্বকে তোলপার করে দিয়েছে। প্রচুর লোক অসুস্থ হয়েছে, প্রচুর লোক মারা গিয়েছে! অসংখ্য পরিবার তাদের কাছের মানুষদের হারিয়েছে। অনেক হাসপাতাল কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। বিভিন্ন দেশে লক্‌ ডাউন হয়েছে মাসের পর মাস, রোগের সংক্রমণকে বন্ধ রাখার জন্য। অনেক ব্যাবসা বন্ধ হয়ে গেছে এবং এখনো হচ্ছে, অনেক লোক চাকরী হারিয়ে এখন ঘর-বন্দী। এদেশে সরকার থেকে মানুষকে অর্থ-সাহায্য করা হয়েছে। কিছু লোক বেকার ভাতা নিয়ে কিছুদিনের জন্য একটু নিশ্চিন্ত হয়েছেন। এই যে সাংঘাতিক বিপর্যয়, এ কোন বিশ্ব-যুদ্ধের থেকে কম নয়। এক-একটা বিশ্ব যুদ্ধের পর সবাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে অনেক সময় লেগেছে। ঠিক তেমনি এই কোভিড-১৯ বিপর্যয় থেকে আগের অবস্থায় ফিরতে বিভিন্ন দেশের বেশ কিছুটা সময় লাগবে। যারা এখন ছোট, তারা বড় হয়ে তাদের সন্তান-সন্ততীকে বলতে পারবে তাদের অভিজ্ঞতার কথা, কিভাবে তারা দিনের পর দিন বাড়ীতে থেকে স্কুলের ক্লাশ করেছে অনলাইনে, শিক্ষক শিক্ষিকার সঙ্গে কথা বলেছে জুম লিঙ্কের মাধ্যমে। বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে দেখা করেছে, দূরে থাকা দাদু-দিদার সঙ্গে কথা বলেছে এই জুম লিঙ্কের সাহায্য।

মুখের মাস্ক ও হাতের স্যানিটাইজার আমাদের নিত্য সঙ্গী হয়ে গেছে এখন। আগে মনে রেখে ব্যাবহার করতে হলেও এখন এদুটি জিনিস আমাদের জীবণের একটি অংশ হয়ে গেছে। মুখের মাস্ক এখন এক ফ্যাসন স্টেটমেন্ট হয়ে গেছে। বিভিন্ন কোম্পানী তাদের লোগো দিয়ে সুন্দর সুন্দর মাস্ক বানাচ্ছে। প্রথমদিকে সার্জিক্যাল মাস্ক ও স্যানিটাইজারের অভাব হলেও এখন পাওয়া যাচ্ছে।

ডিসেম্বরের গোড়া থেকেই শুনছিলাম প্রতিষেধক আসছে, অবশেষে এসে গেল। আপাততঃ ফাইজার ও মডার্না -এই দুটি কোম্পানীর ভ্যাক্‌সিন ব্যাবহার হলেও, শোনা যাচ্ছে আরো প্রায় তিন-চারটি কোম্পানীর ভ্যাকসিন বাজারে আসবে।এটা ভালো খবর। বেশী ভ্যাকসিন হলে আরো বেশী মানুষ প্রতিষেধক পাবে। প্রথম যে দুটি ভ্যাকসিনের কথা বলেছি, তা এখন হাসপাতাল কর্মীদের ও বিভিন্ন নার্সিংহোমে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের দেওয়া হচ্ছে। এর পরে পাবেন ৭৫-উর্ধ বয়সের মানুষেরা। এই দুটি ভ্যাকসিন দুটি করে ডোজে দেওয়া হচ্ছে। দ্বিতীয় ডো্জটি প্রথম ডো্জের তিন সপ্তাহ বাদে দেওয়া হচ্ছে। আশা করা যায়, এই বছরের মাঝামাঝি, অনেক মানুষ প্রতিষেধক পেয়ে যাবেন। শুধু এদেশে নয়, সারা পৃথিবীতে বিভিন্ন কোম্পানী প্রতিষেধক বানাচ্ছে। কাজেই এ বছরে আরো প্রতিষেধক সারা পৃথিবীতে আসবে। নতুন বছর আমাদের নতুন আশা দিক, আমাদের আরো সহনশীল করুক, আমাদের সুস্থ রাখুক- এই কামনা করি।

ওঁম সর্বেশম স্বস্থির্ভবতি

সর্বেশম শান্তির্ভবতি

সর্বেশম পূর্ণ্মভবতি

সর্বেশম মঙ্গলম ভবতি

ওঁম শান্তি শান্তি শান্তি।।

One thought on “আমার কথা/জানুয়ারী ২০২১

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s