কথোপকথন

কথোপকথনকথোপকথনSahachari 4

সহচরী ১ মিতা পল

আমার প্রথম সহচরী হলেন মিতাদি (মিতা পল)। একদিকে পেশায় IT program manager, একাই ৬০ জনের একটি টিম সামলান, অন্যদিকে গৃহিনী, স্ত্রী, মা এবং বাংলা সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িত দীর্ঘদিন ধরে। তবে প্যাশন হল নাটক। এই প্রসঙ্গে পরে বলছি।

জন্ম ইচ্ছাপুরে। বাবা ছিলেন ডিফেন্স-এ। সেই সুত্রে পরবর্তী কালে কানপুরে ডিফেন্স কলোনীতে বসবাস এবং সেখানেই বড় হয়েছেন। প্রবাসে বাংলা শেখা মার ইচ্ছায়। বাড়ীতে ছিল অনেক বাংলা বই। ছোটবেলাতেই পরিচয় রবীন্দ্ররচনাবলীর সঙ্গে। রবীন্দ্রসঙ্গীত শিখেছেন গীতবিতানে।

স্কুলের গন্ডী পেরিয়ে মিতা এলেন যাদবপুর বিশ্ব বিদ্যালয়ে পড়তে । Physics honors  এর ছাত্রী মিতার কলকাতায় হোস্টেলে নতুন জীবন শুরু হল। পড়াশুনার সাথে সাথে বাংলা সাহিত্য পড়া আবার শুরু হল। সতীনাথ ভাদুড়ীর “ঢোড়াই চরিত মানুষ” দিয়ে শুরু। যাদবপুরে কাটানো ৫-৬ বছরে মিতা culturally enriched হলেন। এসবের মধ্যেই কানপুরের মিতা চ্যাটার্জীর পরিচয় হল Chemical engineering এর ছাত্র দিব্যেন্দু পলের সঙ্গে। একসঙ্গে নাটক করা শুরু হল। বিয়ে করেন ১৯৮৪ সালে। আমেরিকার ওকলাহোমাতে পাড়ি দেন ১৯৮৮ সালে। ইতিমধ্যে জীবনে তৃতীয় মানুষের আবির্ভাব হয়েছে। একমাত্র ছেলে প্রিয়াঙ্ককে নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর নতুন জীবন শুরু হল আমেরিকায়। ক্রমে North Carolina এলেন এবং জমে উঠল তিনজনের সংসার।এখানে আবার বাংলা সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িত হন। স্বামী-স্ত্রী মিলে অনেক নাটক produce করেছেন। নাটকের  দল  তৈরী করেন- Carolina Theater Workshop (CLT-W)। সবামী দিব্যেন্দু Creative director আর বাকীটা মিতা সামলেছেন। এই যে বাকীটা বললাম- এটা কিন্তু অনেকটা কাজ একটা নাটকের দলের ক্ষেত্রে।নাটক শুরু করা, রিহারসাল ঠিকঠাক হওয়া, লোকজনের সংগে যোগাযোগ করা এবং রাখা, venue ঠিক করা, টিকিট বিক্রি করা, নাটক মঞ্চস্থ করা- একটা বিরাট ব্যাপার। স্টেজে অভিনয় ছাড়াও অনেক আনুসংগিক কাজ থাকে। নাটকের দল নিয়ে বাইরে গেছেন অনেকবার show করতে। কলকাতা থেকে বিখ্যাত নাটকের দল নিয়ে এসেছেন।

দৈনন্দিন জীবন কিন্তু থেমে থাকেনি। সংসার, ছেলে মানুষ করা, নাটকের সঙ্গে সঙ্গে Network Engineering নিয়ে MBA শেষ করে IBM এ যোগদান করেন ১৯৯৮ সালে।ব্যাংগালোরে কাটান দেড় বছর Service Coordinator Delivery Project Executive হিসেবে।এই সময়ে একটা বড় টিম একাই সামলেছেন। অনেক রকমের মানুষ নিয়ে কাজ করেছেন। এই সময়ে তার people handling skills খুব কাজে এসেছে।

বর্তমানে মিতা থাকেন Washington DC তে স্বামীর সঙ্গে। ছেলে স্কুল-কলেজের গন্ডী শেষ করে এখন Lawyer। এখানে বলে রাখি এই রকম নাটক-পাগল মা-বাবার সন্তান প্রিয়াঙ্ক কিন্তু ছোটবেলায় অনেক নাটক করেছে। মিতার একান্ত ইচ্ছা ভবিষ্যতে দেশে গিয়ে কোন NGO adopt করা এবং তাদের নানাভাবে সাহায্য করা। মিতার মনে পড়ে ছোটবেলায় দেখেছেন মাকে Women welfare এর সেলাই স্কুল চালাতে। Philanthropist বাবাকে- যিনি নিঃশব্দে দান করতেন।

মিতার মতে ভবিষ্যত নাটক – “আমরা অনেকটা সময় পেরিয়ে এসেছি সেই সময় থেকে যখন ছেলেরা মেয়েদের রোল করতেন। এখন অনেক মেয়ে আসছেন মেয়েদের রোল করতে।  কিন্তু একদিন আসবে যেখানে Unisex roles আর Strong character roles আসবে। নাটক এমনি একটা মিডিয়া যেটা একদিকে Therapeutic অন্যদিকে Empowerment আনতে পারে মানুষের মধ্যে। বিশেষ করে সেই সব মেয়েদের জন্য যারা নিজের জন্য বলতে পারেনি বা পারেনা- নাটক তাদের একটা Front হতে পারে। নাটক শুধুমাত্র আমোদ বা entertainment এর জন্য নয়-একটা ক্ষমতাবান media -যা খুব সহজে মানুষের হৃদয় ছুঁতে পারে। ভবিষ্যত প্রজন্ম নাটক-Therapy র কথা ভাবতে পারে।“